Daily Bangladesh
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খেলাধুলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. পাঠক মতামত
  7. ফিচার
  8. বিজ্ঞান ও গবেষণা
  9. বিনোদন
  10. ব্যবসা ও বানিজ্য
  11. রাজনীতি
  12. লাইফস্টাইল
  13. শিক্ষা
  14. সাহিত্য ও সংস্কৃতি
  15. স্থানীয় সংবাদ
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রিজার্ভ বেশি দেখানোর সুযোগ নেই

Link Copied!

বাংলাদেশ ব্যাংক নন-লিকুইড সম্পদ বিবেচনায় নিয়ে রিজার্ভ বেশি দেখাচ্ছে- আইএমএফের এমন পর্যবেক্ষণ সঠিক নয় বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। সম্প্রতি সংস্থাটিকে চিঠি দিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানায়, আন্তর্জাতিকভাবে প্রচলিত রীতি মেনে দীর্ঘদিন ধরে একই পদ্ধতিতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের হিসাব করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে রিজার্ভ বেশি দেখানোর কোনো সুযোগ নেই।

জানা গেছে, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলে (ইডিএফ) যোগান দেওয়া ছয় বিলিয়ন ডলার ও সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষকে দেওয়া ৬৪ কোটি ডলার নন-লিকুইড সম্পদ মনে করে আইএমএফ। যে কারণে এই সম্পদ রিজার্ভের হিসাবে ধরা নিয়ে প্রশ্ন তোলে সংস্থাটি। গত জুন ভিত্তিক প্রতিবেদনের ওপর ওই পর্যবেক্ষণ দেওয়া হয়। গত জুন শেষে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ ছিলো ৪৬ দশমিক ৩৯ বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংক জানিয়েছে, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের নিট ও গ্রস আলাদা হিসাব হয়। নিট হিসাব থেকে ইডিএফ ও পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষকে দেওয়া ঋণ বাদ যায়। আর ১৯৮৯ সাল থেকে রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলে যোগান দেওয়া অর্থ রিজার্ভের গ্রস হিসাবে দেখানো হচ্ছে। এই পদ্ধতি নিয়ে আইএমএফ বা অন্য কোনো সংস্থা এতোদিন প্রশ্ন তোলেনি। এছাড়া করোনার কারণে অন্যসব দেশের মতো অর্থনীতিকে সহায়তার জন্য ইডিএফ তহবিলের আকার বাড়ানো হয়েছে। গতবছরের এপ্রিলের পর ইডিএফে নতুন করে যোগান দেওয়া হয় আড়াই বিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন কর্মকর্তা ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, আন্তর্জাতিক পদ্ধতি অনুসরণে অনেক আগ থেকে এ উপায়ে রিজার্ভের হিসাব করা হচ্ছে। হঠাৎ করে কেন তারা এমন পর্যবেক্ষণ দিলো সেটা পরিষ্কার নয়। তাদের পর্যবেক্ষণের জবাব দেওয়া হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, ইডিএফ ও সরকারি প্রকল্পের অর্থায়ন রিজার্ভের গ্রস হিসাবে দেখানো না গেলে আইএমএফের এসডিআরে বরাদ্দ অর্থও তো এখানে দেখানো যাবে না। কাজেই তাদের পর্যবেক্ষণ সঠিক নয়।